তৃতীয় চিন্তা

পশ্চিমা চশমা এবং মুসলিম উম্মাহ

০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯:৫৫
লাবীব আব্দুল্লাহ

আমরা মুসলিম৷ আমাদের আছে অবিকৃত আসমানী কিতাব কুরআন৷ যার সংরক্ষণের জিম্মাদার স্বয়ং আল্লাহ৷ এই কিতাবের কোটি কোটি হাফেয আছে৷ এই কুরআন জীবন সাজাতে গাইডবুক৷ সমাজ নিয়ন্ত্রনের সফল পথনির্দেশক৷

এই কুরআন সব যুগের সকল মানুষকে সঠিক পথে পরিচালিত করার যোগ্যতা রাখে৷

আমরা মুসলিম৷ আমাদের আছে রাহমাতুল লিল আলামীন৷ যিনি মক্কী ও মদনী যুগে পৃথিবীর শান্তিকামী মানুষের এক কাফেলা তৈয়ার করেছেন৷

যারা ছিলেন মানবতাবাদী৷ যারা ছিলেন সংগ্রামী৷ যারা দেশে দেশে শান্তির পয়গাম নিয়ে ছড়িয়ে পড়ে ছিলেন৷ সাতমহাদেশে তাদের শান্তির আওয়াজ পৌঁছেছে৷ খাইরুল কুরুনের একটি সোনালি সময় আছে মুসলিম উম্মাহর৷

আজও মুসলিম উম্মাহর ৫৭ টি দেশ আছে৷ আছে তেল, পেট্রল, খনিজ সম্পাদ, ম্যানপাওয়ার৷ প্রায় দুইশত কোটি মুসলিম আজকের পৃথিবীতে৷ আল্লাহ প্রদত্ত প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর মুসলিম জাহান৷

মুসলিম উম্মাহর গৌরবময় অতীত আছে৷ আছে নিজস্ব সংস্কৃতি কালচার৷ শিল্প৷ সাহিত্য৷ দর্শন৷ চিন্তাধারা৷ মুসলিম উম্মাহর খেলাফতের গর্বিত ঐতিহ্য আছে৷

কিন্তু তবুও কেন আমরা আমাদের উন্নতির সকল সুচকে পশ্চিমা দেশগুলোকে মানদন্ড মনে করি? কেন আমরা আমাদের উন্নতির পরিমাপ করি ইউরোপ আমেরিকাকে মানদন্ড মনে করে?

কেন আমরা আমাদের শিক্ষা, আমাদের কালচার, আমাদের অর্থনীতি আমাদের সোসাইটির উন্নতি অবনতির মাপকাঠি মনে করি ইউরোপকে?

ইফরোপতে মুসলিম উম্মাহর ছাত্র ছিলো৷ আমেরিকার আবিস্কারে অবদান মুসলমানের৷

আমরা কেন বৃটিন ফ্রান্সকে আমাদের উন্নতির মাপকাঠি মনে করবো? তাদের ঔপনিবেশিক নির্যাতনের নাগপাশ থেকে মুক্ত হয়েও কেন মুসলিম জাহান তাদেরই গোলামী করবে?

আজকের মুসলিম উম্মাহকে নতুন করে সব ভাবতে হবে৷ ভাবতে হবে দাওয়াতি চেতনায়৷ ভাবতে হবে খাইরুল কুরুনকে সামনে রেখে৷ ভাবতে হবে খেলাফতে রাশেদার মডেলকে সামনে রেখে৷

মুসলিম উম্মাহকে চিন্তার জড়তাকে বাদ দিয়ে খোলামনে ভাবতে হবে৷ সেই ক্রসেডাররা আবার নতুন শাড়ি পরিধান করে এসেছে৷ সন্ত্রাসবাদ জঙ্গিবাদের জন্মদাতা কে? এ নিয়েও চিন্তা করতে হবে গভীরভাবে৷ কে কালোপতাকা উড়িয়ে মুসলিমদের হত্যা করছে খেলাফতের নামে তাও ভাবতে হবে৷ এই ভাবনা হবে কুরআন হাদীস ও ফিকহের আলোকে৷ 

আধুনিক যুগে বিশ্বময় ইসলামী চেতনা ছড়িয়ে দিতে মুসলিম বুদ্ধিজীবীকে চিন্তা করতে হবে৷ এই চিন্তার মডেল কিন্তু পশ্চিমা ধাঁচের নয়৷ এই চিন্তার মড়েল হবে সীরাতের আলোকে৷

আধুনিক বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে হলে এবং অশান্তির অনল থেকে বিশ্বকে মুক্ত করতে হলে মুসলিমকে ভাবতে হবে কুরআন হাদীস ইজমা কিয়াসের মাপকাঠিতে৷ পশ্চিমা মাপকাঠিতে পরিমাপ করে মুসলিম জাহানের উন্নতি অগ্রগতি প্রবৃদ্ধি নির্ণয় করা চরম বোকামী ও ব্যর্থতা মুসলিম উম্মাহর৷

আমাদের উন্নতির মাপকাঠি ইসলামের আয়নায়৷ পশ্চিমা চশমায় নয়৷ আজকে চোখ থেকে খোলতে হবে পশ্চিমা চশমা৷

আমাদের চশমা হোক আল কুরআনুল কারীম৷ আমাদের চশমা হোক সুন্নাহ৷ সীরাতে নববী৷

মন্তব্য লিখুন :