তবুও ডাক দিয়ে যাই

কওমিতে পদায়ননীতিমালা এবং দ্বীনের জোনাকি

১৭ জুন ২০২০, ২২:১৭
লাবীব আব্দুল্লাহ

মুহতামিম, মুঈনে মুহতামিম নিয়োগে বেফাক ও হাইআতুল উলইয়ার কোনো নীতিমালা না থাকলে মাদরাসাগুলো বিপর্যয়ের শিকার হবে৷ ফিতনা হবে৷ অযোগ্যরা নিয়োগ পাবে৷ পদায়ন হবে স্বজনপ্রতীতি, সাহেবজাদাভিত্তিক বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে৷

মুহতামিম, নায়েবে মুহতামিম, নাযেমে তালীমাত, দারুল ইকামা জাতীয় পদের নিয়োগ-বিয়োগে সঠিক, বাস্তবসম্মত নীতিমালা তৈয়ার সময়ের দাবি৷ চট্রগ্রামের মাদরাসাগুলোতে করোনাকালে যা হচ্ছে তা লজ্জাজনক৷ মিডিয়ায় নিউজ হচ্ছে৷ ফেবুতে আলোচিত হচ্ছে৷ পক্ষ বিপক্ষে যার যার মতো কথা বলে যাচ্ছে৷ বিগত এক দশকে কওমিতে সাহেবজাদাদের অযাচিত প্রভাব বৃদ্ধি হয়েছে৷

কওমির মান কমছে৷ হতাশা বাড়ছে৷ প্রভাবহীনের দিকে যাচ্ছে কওমির আগামী৷

করোনাকালে বেফাক-হাইআ এখনও শিক্ষকদের জন্য উল্লেখযোগ্য কোনো ভূমিকা রাখতে পারেনি৷ রাখলেও প্রকাশমান নয়৷ তাছাড়া মাদরাসার দরস তাদরিস ও ভর্তি ও পরবর্তীতে কীভাবে দরস চলবে বা কী হবে তার যথাযথ, যৌক্তিক কোনো নির্দেশনা এখনও প্রকাশ্যে আসেনি৷

কওমির নিয়োগ-বিয়োগ পদায়ন বা তরক্কির অভিন্ন ও যৌক্তিক নীতিমালা প্রণিত ও বাস্তবায়ণ না হলে কওমির আগামী আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর মতো হবে৷ তিনি জনপ্রিয় ও যোগ্য হয়েও উপেক্ষিত৷ 

হাটহাজরি মাদরাসা আগেও সিয়াসত ও রাজনীতি থেকে দূরে থেকেছে আগামীতে দূরে থাকলে ভালো। অন্যথা কী হবে তা বলার প্রয়োজন নেই৷

লাশ ও অক্ষম মুরুব্বী নিয়ে সাওদাবাজি, তেজারত ও ছিনিমিনি খেলা বন্ধ হোক৷

কওমি তুমি জেগে থাকো৷ মাদরাসা জিন্দা রাখো৷ জেগো থাকো দ্বীনের জোনাকি কওমি মাদরাসা৷ আঁধারে আলো জ্বালো৷

মন্তব্য লিখুন :