দেশের সব পোশাক কারখানাও ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ

১১ এপ্রিল ২০২০, ০৫:০৫
অনুসন্ধান ডেস্ক

দেশের সব পোশাক কারখানা ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) এবং বাংলাদেশ নিট পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিকেএমইএ)।

শুক্রবার বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক এবং বিকেএমইএ সভাপতি একেএম সেলিম ওসমান এক যৌথ ঘোষণায় বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট সবার অবগতির জন্য জানান যাচ্ছে যে মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সরকারের ছুটির সাথে সামঞ্জস্য রেখে বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ’র সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলো আগামী ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

তবে এ সময়ের মধ্যে বেতন দেয়ার জন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের অফিস খোলা রাখার প্রয়োজন হলে সে ক্ষেত্রে নিজেদের সমিতি (বিজিএমইএ/বিকেএমইএ) এবং শিল্প পুলিশকে অবহিত করতে হবে বলে ঘোষণায় জানানো হয়।

এর আগে সরকার সাধারণ ছুটি ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ালে এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ ৬ এপ্রিল এক ঘোষণায় তাদের সদস্য পোশাক কারখানাগুলো ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়।

দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের মাঝে বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক গত ২৬ মার্চ এক আবেদনে পোশাক কারখানার মালিকদের তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়ার বিষয়টি বিবেচনা করার আহ্বান জানান।

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে দেশে সাধারণ ছুটির মেয়াদ ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়ে শুক্রবার প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী- ছুটি চলাকালীন সময়ে কয়েকটি নির্দেশাবলি কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়। এগুলো হলো- জনগণকে অবশ্যই ঘরে থাকতে হবে। প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘরের বাইরে বের না হওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। সন্ধ্যা ৬টার পর কেউ ঘরের বাইরে বের হতে পারবে না। নির্দেশ অমান্য করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যদিকে ভাইরাসের বিস্তার রোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও রেল, সড়ক, নদী ও বিমান যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাসে দেশে শুক্রবার নতুন করে ৯৪ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে এবং ছয়জন মারা গেছে। এনিয়ে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা মোট ৪২৪ জন এবং মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭ জনে।

এদিকে বিশ্বে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে প্রাণহানির সংখ্যা শুক্রবার সকালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৫ হাজার ৭৯৪ জনে।

মন্তব্য লিখুন :