নওগাঁ-৬ আসনে আলোচনায় মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী

৩১ আগস্ট ২০২০, ১০:৩১
নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে অন্যতম প্রার্থী হচ্ছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী। ইতিমধ্যেই এই আসনে নওশের আলী মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ক্লিন ইমেজের একজন মানুষ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন। তৃণমূলসহ সকল শ্রেণিপেশার মানুষের কাছে একটি জনপ্রিয় মুখ হিসেবে নওশের আলী বর্তমানে উপ-নির্বাচনে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন। 

রাণীনগর ও আত্রাই এই দুই উপজেলা নিয়ে গঠিত নওগাঁ-৬ ও সংসদীয় আসন-৫১। বর্তমানে এই আসনে উপ-নির্বাচনের হাওয়া বইছে। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা যার যার মতো নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণার কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছেন। দুই উপজেলার বিভিন্ন জনমুখর স্থানগুলো শুভেচ্ছা পোস্টারে ছেঁয়ে গেছে। আসন্ন উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন ৩৪জন প্রার্থী। অন্য আসনের প্রার্থী ঘোষণা করা হলেও নওগাঁ-৬ আসনের দলীয় প্রার্থীর নাম জানায়নি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। 

তবে এই আসনের তৃণমূল পর্যায়ের মানুষরা একজন শিক্ষিত, পরীক্ষিত, সৎ, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের যার দ্বারা সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে তেমন একজন মানুষকে উন্নয়নের প্রতীক নৌকার কান্ডারি হিসেবে দেখতে চান। কারণ ইতিমধ্যেই বিএনপি এই নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। আর বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও গত সংসদ নির্বাচনের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী আলমগীর কবিরকে মনোনয়ন দিতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। তাই আলমগীর কবিরের বিপরীতে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যদি একজন গ্রহণযোগ্য ও স্বচ্ছ মানুষকে নৌকা প্রতিক দেওয়া না হয় তাহলে অঘটনের আশঙ্কা করছেন সচেতন মহল। 

নওশের আলীর পিতা মরহুম ছাবের আলী প্রামানিক রাণীনগর থানা আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সভাপতি ছিলেন। নওশের আলীর জন্ম ১৯৫২জেলার রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়নের খাজুরিয়া গ্রামে। ব্যক্তিগত জীবনে দুই ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে তিনি সবার বড় এবং ৪ কন্যা সন্তানের জনক। কর্ম ও রাজনীতির কারণে বর্তমানে তিনি রাজশাহীর কাদিরগঞ্জ দড়িখরবোনায় স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। 

তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং লাভ করেন। বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সময় ৭নং সেক্টরের ৩নং সাব-সেক্টর (মহদিপুর সাব-সেক্টর) কমান্ডার বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের অধিনে মর্টার প্লাটুন কমান্ডার, এম.এফ.সি এবং আর্টিলারি ও.পি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন।

রাজনীতিতে ১৯৬৫সালে ছাত্রলীগে যোগদানের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেন। ১৯৭১সালে রাণীনগর থানা সংগ্রাম পরিষদের সদস্য, ১৯৭২ সালে রাণীনগর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৭৩ সালে রাণীনগর থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক, ১৯৭৪ সালে রাণীনগর থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, ১৯৯১সালে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক, ১৯৯৭ সাল হতে ২০১৫ সাল (পরপর ৩ মেয়াদে) রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ২০১৫সাল হতে ১মার্চ, ২০২০পর্যন্ত রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি (১ মার্চ, ২০২০ তারিখ রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনের পর করোনা ভাইরাসের মহামারীর কারণে কমিটি গঠন হয়নি। সাবেক কমিটি দ্বারা দলীয় কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে)। ২০০৮, ২০১৪ এবং ২০১৮সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন প্রার্থী ছিলেন তিনি।

আসনটি শূন্য হওয়ার পর থেকেই অনেকেই শুরু করেছেন আগাম নির্বাচনী গনসংযোগ, পথসভা, মিটিং ও সিটিং। মনোনয়ন প্রত্যাশী নওশের আলী বলেন আমি প্রার্থী হিসেবেই শুধু নয় আগেও এই অঞ্চলের মানুষের পাশে ছিলাম যতদিন বেঁচে আছি ততদিন আমার জন্মভ’মির মানুষের পাশে থাকতে চাই। কারণ স্বাধীনতার যুদ্ধে জীবন বাজি রেখে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে দেশের মানুষকে মুক্ত আমি মুক্ত করেছি। তাই প্রধানমন্ত্রী যদি সুযোগ দেন তাহলে আমি এই আসনের মানুষদের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কাজের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে নতুন করে ছড়িয়ে দিতে চাই। এই অঞ্চলকে মাদক, ঘুষ, হানাহানি ও জোবর দখল থেকে মুক্ত করে একটি সুখি ও সমৃদ্ধ অঞ্চলে পরিণত করতে চাই। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের সুফল এই অঞ্চলের প্রতিটি মানুষের কাছে পৌছে দিতে চাই। তাই আমি আশাবাদি প্রধানমন্ত্রী আমার সকল কিছু বিচার-বিবেচনা করে এই আসনের জন্য আমাকে উপযুক্ত মনে করে নৌকা প্রতিক আমাকেই দিবেন।

মন্তব্য লিখুন :